সমাজসেবা অধিদফতর গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৬ August ২০২১

এক নজরে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন প্রকল্প

 

একনজরে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন প্রকল্পের বিস্তারিত তথ্য 

 

১. প্রকল্পের নাম

“বাংলাদেশের প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন (২য় সংশোধিত)” প্রকল্প

২. উদ্যোগী মন্ত্রণালয়/বিভাগ

সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়

৩. বাস্তবায়নকারী সংস্থা

সমাজসেবা অধিদপ্তর, ঢাকা

 

৪. বাস্তবায়নকালঃ

মেয়াদকাল

অনুমোদনের তারিখ

মূল মেয়াদের তুলনায় বৃদ্ধি

সর্বশেষ অনুমোদিত মেয়াদের তুলনায় বৃদ্ধি

৪.১. মূল অনুমোদিত মেয়াদ

জুলাই, ২০১৭-জুন, ২০২০

১৯/১০/২০১৭

-

-

৪.২. ১ম সংশোধিত মেয়াদ

জুলাই, ২০১৭-জুন, ২০২২

১১/০৬/২০১৯

২ (দুই) বছর

২ (দুই) বছর

৪.৩. ২য় সংশোধিত মেয়াদ

জুলাই, ২০১৭-ডিসেম্বর, ২০২২

২৫/০৫/২০২১

২ (দুই) বছর ৬(ছয়) মাস

৬(ছয়) মাস

 

৫. অনুমোদিত ব্যয়

মোট ব্যয় (লক্ষ টাকায়)

জিওবি

মূল অনুমোদিত ব্যয়ের তুলনায় বৃদ্ধি

সর্বশেষ অনুমোদিত ব্যয়ের তুলনায় বৃদ্ধি

৫.১. মূল অনুমোদিত ব্যয়

৪৮৫৫.৭০

৪৮৫৫.৭০

-

-

৫.২. ১ম সংশোধিত ব্যয়

৬০৬৯.৬১

৬০৬৯.৬১

২৫%

-

৫.২. ১ম সংশোধিত ব্যয়

৭০৮৪.২২

৭০৮৪.২২

৪৫%

১৬%

 

৬. প্রকল্প এলাকা

বিভাগ

জেলা

উপজেলা

-

৬.১. মূল অনুমোদিত এলাকা

৮টি

৮টি

৮২টি

-

৬.২. ১ম সংশোধিত এলাকা

৮টি

২০টি

১০২টি

-

৬.৩. ২য় সংশোধিত এলাকা

৮টি

২৭টি

১১৭টি

 

 

 

প্রকল্পের সাধারণ উদ্দেশ্য

 

প্রকল্পের প্রধান উদ্দেশ্য

:

মূল উদ্দেশ্য: প্রান্তিক পেশাজীবী জাতিগোষ্ঠীর দক্ষতা উন্নয়নের মাধ্যমে উৎপাদিত পণ্য ও সেবার উৎকর্ষ এবং পেশার আধুনিকায়নের মাধ্যমে তাঁদের অর্থনৈতিক, সাংস্কৃতিক ও সামাজিক মর্যাদা বৃদ্ধিসহ সমাজের মূল শ্রোতধারায় সম্পৃক্তকরণের নিমিত্ত জীবনমান উন্নয়ন।

 

 

 

বিশেষ উদ্দেশ্য:

-দেশব্যাপী প্রান্তিক পেশাজীবীগোষ্ঠীর সঠিক সংখ্যা নিরূপণ ও তাদের তথ্য সম্বলিত অনলাইন ডাটাবেজ;

-পেশার টেকসই উন্নয়নে সফটস্কিলস/উদ্যোক্তা প্রশিক্ষণ প্রদান।

-মাঠ পর্যায়ের এ পেশাজীবীদের উৎপাদিত পণ্যবাজারজাতকরণের লক্ষ্যে ঢাকায় ১ টি বিপনন কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা।

-উপার্জন সক্ষমতা বৃদ্ধিকল্পে ও দক্ষতা উন্নয়নের নিমিত্ত প্রশিক্ষণ প্রদান;

-হাতে কলমে এপ্রেন্টিসশীপ (শিক্ষানবিশি) প্রশিক্ষণপ্রদানেরমাধ্যমে পেশার মানোন্নয়ন;

-কাজের সুযোগ সৃষ্টি ও আত্মকর্মসংস্থানের ক্ষেত্র তৈরি;

-প্রশিক্ষনোত্তর পেশার টেকসই উন্নয়নে নগদ অর্থ সহায়তা;

-প্রান্তিক পেশাজীবীগোষ্ঠীর সামাজিক মর্যাদা ও সুরক্ষা নিশ্চিতকরণ;

-গুগল ম্যাপিং এর মাধ্যমে প্রশিক্ষণ ও অনুদান (নগদ সহায়তা) প্রাপ্তদের ব্যবসা প্রসারে সহায়তা এবং মনিটরিং এর মাধ্যমে প্রকল্পের স্বচ্ছতা নিশ্চিতকরণ;

-পেশাজীবীদের উৎপাদিত পণ্যের উৎকর্ষ সাধনে পরামর্শ/প্রশিক্ষণসহ তাঁদের উৎপাদিত পণ্যের বহূমুখী ব্যবহারে প্রচারণা;

- প্রশিক্ষনোত্তর সমাজসেবা অধিদপ্তর/বিএমইটি কর্তৃক কম্পিটেন্ট সনদ প্রদান।

 


Share with :

Facebook Facebook